স্কুলে না গিয়ে ৭০ হাজার টাকা বেতন প্রধান শিক্ষিকার

স্কুলে না গিয়ে ৭০ হাজার টাকা বেতন প্রধান শিক্ষিকার

উত্তরদক্ষিণ । মঙ্গলবার, ১৪ জুন ২০২২ । আপডেট ০৯:২০

পাঁচ মাস ধরে স্কুলে আসেন না প্রধান শিক্ষিকা। যদিও তিনি রোজই স্কুলে আসেন, ক্লাসও নেন। নিশ্চয়ই ধাঁধার মতো শোনাচ্ছে। ঘটনা হল ওই শিক্ষিকা নিজে দিনের পর দিন, এমনকি মাসের পর মাস স্কুলে না উপস্থিত হলেও তার হয়ে প্রক্সি দিতেন এক যুবতী। এই কাজের জন্য যুবতীকে মাসিক বেতনও দিতেন শিক্ষিকা। ইন্ডিয়ার উত্তরাখণ্ডের একটি স্কুলের এই ঘটনা সামনে আসতেই শোরগোল পড়ে গেছে। শেষ পর্যন্ত অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষিকাকে সাসপেন্ড করা হয়েছে।

ঘটনাটি উত্তরাখণ্ডের পারুই গাড়োয়াল জেলায়। জেলার একেশ্বর ব্লকের বানথোলি গ্রামে রয়েছে একটি প্রাইমারি স্কুল। সেখানকার প্রধান শিক্ষিকার নাম দ্রৌপদী মাধায়াল। এই দ্রৌপদীই আজব কাণ্ড করেছেন। জানা গেছে, গত পাঁচ মাস ধরে তিনি স্কুলে আসেন না। যদিও ৭০ হাজার টাকা বেতন সময় মতোই তুলে নিতেন। তার থেকে ১০ হাজার টাকা মাস চুক্তিতে ভাড়া করেছিলেন নিজের গ্রামেরই এক যুবতীকে। সেই গত কয়েক মাস ধরে স্কুলে যেত এবং ছাত্রছাত্রীদের ক্লাস নিত।

প্রশ্ন হল, দিনের পর দিন এমনটা চালিয়ে গেলেন কী করে ওই শিক্ষিকা? হঠাৎ কীভাবে বিষয়টি জানা গেল? জানা গেছে, বেশ কিছু দিন ধরেই অভিযোগ আসছিল। যদিও শুরুতে আমল দেননি স্থানীয় শিক্ষা অধিদপ্তর। সম্প্রতি গ্রামবাসীদের থেকে নতুন করে অভিযোগ পেয়ে ওই স্কুলে অভিযান চালায় স্কুল শিক্ষা দপ্তর। তাতেই জালিয়াতি প্রকাশ্যে আসে। এরপরেই অভিযুক্তকে প্রধান শিক্ষিকাকে সাসপেন্ড করা হয়েছে।

এই বিষয়ে ব্লক এডুকেশন অফিসার বুশরা বলেন, আমরা গ্রামবাসীদের কাছে থেকে একাধিকবার অভিযোগ পেয়েছি, প্রধান শিক্ষিকা স্কুলে আসেন না। তিনি পড়ানোর জন্য এক যুবতীকে ভাড়া করেছেন। গত পাঁচ মাস ধরেই এই কাজ চলছিল। হঠাৎ একদিন স্কুল পরিদর্শনে যাই। তখনই অভিযোগের সত্যতা সামনে আসে।

ইউডি/সুস্মিত

Md Enamul

Leave a Reply